বুধবার , ৬ জুলাই ২০২২ | ২রা ভাদ্র, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
  1. অন্যান্য
  2. অপরাধ
  3. অর্থনীতি
  4. আইন-আদালত
  5. আন্তর্জাতিক
  6. আরো
  7. এক্সক্লুসিভ নিউজ
  8. খুলনা বিভাগ
  9. খেলাধুলা
  10. চট্টগ্রাম বিভাগ
  11. চাকরি
  12. জাতীয়
  13. ঢাকা বিভাগ
  14. তথ্য-প্রযুক্তি
  15. ধর্ম

বাউফলে ন্যাড়া করা হলো শিক্ষকের মাথা!!

প্রতিবেদক
admin
জুলাই ৬, ২০২২ ৯:৫১ অপরাহ্ণ

কহিনুর বাউফল(পটুয়াখালী)প্রতিনিধিঃ পটুয়াখালী জেলার বাউফল উপজেলায় শিক্ষার্থীকে ফুঁসলে নেয়ার অভিযোগে হাফেজ মনিরুল ইসলাম নামের এক শিক্ষককে মারধর করে মাথা ন্যাড়া করে দেয়া হয়েছে। বাউফল পৌর শহরের হাজি সড়ক এলাকার বাউফল মদিনাতুল উলুম নুরানি হাফিজি ক্যাডেট মাদ্রাসার পরিচালক মাও. আনিচুর রহমানের নির্দেশে মাও. জসিম উদ্দিন ওই শিক্ষককের মাথা ন্যাড়া করেন। জানা গেছে, হাফেজ মনিরুল ইসলাম বাউফল মদিনাতুল উলুম নুরানি হাফিজি ক্যাডেট মাদ্রাসায় শিক্ষক হিসাবে চাকরি করতেন। একজন ভাল শিক্ষক হিসাবে ছাত্র ও অভিভাবকদের মধ্যে তার সুনাম ছিল। ওই মাদ্রাসার পরিচালক মাও. আনিচুর রহমানের সাথে তার মতবিরোধ দেখা দিলে সম্প্রতি তিনি চাকরী ছেড়ে চাঁদপুর সদর উপজেলার লাউতলী জামিয়া মদিনাতুল উলুম মাদ্রাসায় শিক্ষক হিসাবে যোগ দেন। তিনি চলে যাওয়ার পর কয়েকজন ছাত্র ওই মাদ্রাসা ছেড়ে অন্য মাদ্রাসায় গিয়ে ভর্তি হন। কয়েক দিন আগে বাউফল পৌর শহরের ২নং ওয়ার্ডের জাকির হোসেনের ছেলে মুজাহিদ (৮) ওই মাদ্রাসা ছেড়ে হাফেজ মনিরুল ইসলামের চাঁদপুরের মাদ্রাসায় গিয়ে ভর্তি হন। মুজাহিদের বাবা তার ছেলেকে ভর্তি করে দিয়ে আসে। এতে ক্ষুব্ধ হন বাউফল মদিনাতুল উলুম নুরানি হাফিজি ক্যাডেড মাদ্রাসার পরিচালক মাও. আনিচুর রহমান। তার ধারণা শিক্ষক মনিরুল ইসলাম ওই ছাত্রকে ফুঁসলে নিয়ে চাঁদপুর তার মাদ্রাসায় ভর্তি করেছেন। এরপর তিনি অভিভাবক পরিচয়ে অন্য একটি মোবাইল নম্বর দিয়ে হাফেজ মনিরুল ইসলামকে কয়েকজন ছাত্র দেয়ার নামে চাঁদপুর থেকে গত ৩ জুলাই বাউফলে ডেকে এনে কালিশুরী এলাকার একটি মাদ্রাসার রুমে আটকে রেখে মারধর করেন। এরপর তার নির্দেশে মাও. জসিম উদ্দিন নামের অপর এক শিক্ষক মনিরুল ইসলামের মাথা ন্যাড়া করে দেন এবং তার কাছ থেকে একটি মোবাইল ও সাড়ে ৪ হাজার টাকা রেখে রাত ৮টার দিকে তাকে ছেড়ে দেন। বাউফল থানার ওসি আল মামুনের নির্দেশে এসআই নাসির উদ্দিনের নেতৃত্বে কয়েকজন পুলিশ একই দিন দুপুরে মদিনাতুল উলুম নুরানি হাফিজি ক্যাডেড পুলিশ অভিযান চালায়। তবে এ ঘটনার সাথে জড়িত কাউকে এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত (সন্ধ্যা ৭টা) গ্রেফতার করা হয়নি। ঘটনার শিকার ওই শিক্ষকের বাড়ি ভোলা সদর উপজেলার আলী নগর গ্রামে । তার বাবার নাম আবদুল মন্নান।

সর্বশেষ - এক্সক্লুসিভ নিউজ

আপনার জন্য নির্বাচিত

লালমোহন প্রেসক্লাবে মাই টিভি’র প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান’র ১৫ তম মৃত্যুবার্ষিকীতে মিলাদ মাহফিল অনুষ্ঠিত

পটুয়াখালীর দুমকিতে যৌতুকের দাবীতে ইটের আঘতে গৃহবধূকে জখম!

ঠাকুরগাঁও পীরগঞ্জে মাটি চাপায় ১ শ্রমিকের মৃত্যু

এসিএমপি চুক্তির আওতায় ভারতের প্রথম ট্রায়াল জাহাজ মোংলা বন্দরে

মোংলাবাসীদের ঈদের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন কামরুজ্জামান জসিম।

কালিয়াকৈরে সারা বছর খবর নেই শুধু মৎস্য সপ্তাহ এলে জাল ধ্বংস করা হয়।

তজুমদ্দিনে ঋন দেয়ার প্রলোভনে জামানতের অর্ধ কোটি টাকা নিয়ে ভুয়া এনজিও লাপাত্তা।

বানারীপাড়ায় বিয়ে করে লাপাত্তা প্রবাসী স্বামী নববধুর আত্মহত্যার চেষ্টা…

আশাশুনিতে লিডার্স এর উদ্যোগে লবণ সহিষ্ণু ধানবীজ বিতরণ

সিলেটে যুবককে জবাই করে হত্যা !! অতপর আগুনে পুড়িয়ে দিলো ঘর শত্রুরা